সাজসজ্জা

আরবীয় লোকেরা গ্রাম্য ও মরু পরিবেশে বসবাস করত। তার দরুন অনেক লোকই পরিচ্ছন্নতা ও সৌন্দর্যের ব্যাপারে তেমন সতর্কতা অবলম্বন করার প্রয়োজন মনে করত না। এ কারণে নবী করীম (সা:) সব সময়ই তাদেরকে পবিত্রতা-পরিচ্ছন্নতার অনুভূতি জাগিয়ে তুলতে চেষ্টা করতেন।
এক ব্যক্তি নবী করীম (সা:)-এর খেদমতে হাজির হয়েছিল। তার দাঁড়ি ও চুল অবিন্যস্ত অবস্থায় ছিল। রাসূল (সা:) তার প্রতি এমনভাব ইঙ্গিত করলেন যে, মনে হলো তিনি হয়ত তাকে চুল দাঁড়ি ঠিকঠাক করার নির্দেশ দিচ্ছেন। নবী করীম (সা:) অপর এক ব্যক্তিকে দেখলেন তার চুল এলোমেলো। তিনি বললেনঃ
“ও লোকটি মাথার চুলগুলো ঠিকঠাক করার জন্য কি কিছুই পায়নি? ময়লা কাপড়-চোপড় পড়া অপর একটি লোককে দেখে তিনি বললেন, ও লোক তার কাপড় পরিষ্কার করে ধৌত করার কি কিছু পায়নি? (আবু দাউদ)

স্বর্ণ, রেশমী কাপড় ও হলুদ বর্ণের পোশাক পুরুষদের জন্য হারাম
হযরত আলী (রা:) থেকে বর্ণিত হয়েছে, তিনি বলেছেন নবী করীম (সা:) রেশম ডান হাতে নিয়ে এবং স্বর্ণ বাম হাতে নিয়ে বললেনঃ এ দুটি জিনিস আমার উম্মতের পুরুষ লোকদের জন্য হারাম।
হযরত উমর (রা:) থেকে বর্ণিত, তিনি বলেছেন, আমি নবী করীম (সা:)কে বলতে শুনেছিঃ
“তোমরা রেশমী কাপড় পরিধান করবে না। কেননা যে লোক দুনিয়ায় রেশমী কাপড় পরিধান করবে, সে পরকালে তা পরতে পারবেনা।” (বুখারী, মুসলিম)
নবী করীম (সা:) এক ব্যক্তির হাতে স্বর্ণের আঙ্গুরীয় দেখতে পেলেন। তখন তিনি সেটিকে টেনে বের করে দূরে নিক্ষেপ করলেন এবং বললেনঃ “তুমি কি নিজ হস্তে আগুনের স্ফূলিঙ্গ ধরে রাখতে চাও?” নবী করীম (সা:) আমাকে হলুদ বর্ণের কাপড় ব্যবহার করতে নিষেধ করছেন। (মুসলিম)

নারীদের সুগন্ধী ব্যবহার করা হারাম
নবী করীম (সা:) বলেছেন, “যে নারীই সুগন্ধি লাগিয়ে ভিন পুরুষদের সান্নিধ্যে যায়, তার সুঘ্রাণ তারা পেয়ে যায়, সে ব্যভিচারিনী এবং তার প্রতি দৃষ্টিই ব্যভিচারী দৃষ্টি হয়ে দাঁড়ায়।” (নাসায়ী, ইবনে মাজাহ)।

নারীদের চলাফেরা
“মহিলারা যেন তাদের পা এমন জোরে না ফেলে যাতে করে তাদের লুকিয়ে রাখা সৌন্দর্য প্রকাশিত ও গোচরীভূত হয়ে যেতে পারে।” (সূরা নূর : ৩১)

মুসলিম মহিলার পোশাক
হযরত আবু হুরায়রা (রা:) বর্ণনা করেছেন, নবী (সা:) ইরশাদ করেছেনঃ
“দুই ধরনের লোক জাহান্নামী হবে। এক ধরনের লোক সেসব জালিম শাসক প্রশাসক, যাদের সঙ্গে গরুর লেজের মত চাবুক সব সময় ঝুলতে থাকবে এবং যা দিয়ে তারা লোকদের ওপর আঘাত করতে থাকবে। আর দ্বিতীয় হচ্ছে সেসব মেয়েলোক যারা কাপড় পরিধান করেও উলঙ্গ থাকে। তারা পুরুষকে নিজেদের দিকে আকৃষ্ট করতে চেষ্টা করবে আর নিজেরাও পুরুষদের প্রতি ঝুঁকে পড়বে। তাদের মাথা উষ্ট্রের ঝুঁকে পড়া চুটের মতো হবে। তারা জান্নাতে প্রবেশ করবেনা, তার সুগন্ধিও পাবেনা। যদিও জান্নাতের সুঘ্রাণ বহুদূর পর্যন্ত ছড়িয়ে পড়বে।”

নারী-পুরুষের সাদৃশ্য পোশাক হারাম
নবী করীম (সা:) ঘোষণা করেছেন, “নারীর জন্য পুরুষালী পোশাক পরিধান করা এবং পুরুষের জন্য নারীসুলভ পোশাক পরা সম্পূর্ণ হারাম।” (আবু দাউদ, ইবনে মাজাহ, নাসায়ী)

খ্যাতি ও অহংকারের পোশাক
পানীয়, খাদ্য ও পরিধেয় সব পবিত্র জিনিসই মুসলমানদের জন্য হালাল। তবে তাতে শর্ত হচ্ছে তা গ্রহণে যেন সীমালংঘন করা না হয় এবং কোনরূপ অহংকার ও গৌরব প্রকাশ না পায়।
“গৌরবে মগ্ন ও অহংকারী কোন ব্যক্তিই আল্লাহ পছন্দ করেন না।” (আল হাদীদঃ ২৩)
নবী করীম (সা:) বলেছেনঃ “যে লোক তার কাপড় অহংকার সহকারে টানবে কিয়ামতের দিন আল্লাহ তার প্রতি নজরও দিবেন না।” (বুখারী, মুসলিম)
রাসূলে করীম (সা:) বলেছেনঃ “যে লোক খ্যাতি ও সমৃদ্ধির পোশাক পরিধান করবে, কিয়ামতের দিন আল্লাহ তাকে লাঞ্ছনা ও অবমাননাকর পোশাক পরিয়ে দেবেন।”

মাত্রাতিরিক্ত সৌন্দর্যের জন্যে আল্লাহ সৃষ্টি বিকৃতিকরণ
সৌন্দর্য বৃদ্ধির চেষ্টায় এমন সব কাজ করা, যার ফলে আল্লাহর সৃষ্টিই বিৃকত হয়ে যায়, ইসলাম আদৌ তা সমর্থন করে না। কোরআনে এ কাজকে শয়তানের অহী বা পরামর্শ বলে অভিহিত করেছেন। কোরআনের ভাষায় :
“আমি আমার অনুসরণকারীদের আদেশ করব। ফলে তারা আল্লাহর সৃষ্টিকেই বিকৃত করে দেবে।” (সূরা আন নিসা : ১১৯)
নবী করীম (সা:) বলেছেন, “যে মেয়েলোক দেহে উল্কি (সূঁচবিদ্ধ করে চিত্র অংকন) করে, যে তা করায়, যে দাঁত শানিত বানায় এবং যে তা বানাতে বলে, যে স্ত্রীলোক চুল বা পশম উপড়ায় এবং যে অপরের দ্বারা এ কাজ করায়, চুলে যে জোড়া লাগায় এবং যে এ কাজ করায়- রাসূলে করীম (সা:) সবার উপর অভিশাপ করেছেন। (মুসলিম, আবূ দাউদ)

খেজাব লাগানো
যেসব লোক বার্ধক্যে পৌঁছে গেছে, তাদের পক্ষে কালো খেজাব লাগানো বাঞ্ছনীয় নয়। কেননা মক্কা বিজয় কালে হযরত আবু বকর (রা:) তখন তার পিতা আবু কাহাফাকে রাসূলে করীম (সা:) এর কাছে উপস্থিত করালেন, তিনি দেখলেন, তার পিতার চুল একেবারে সাদা হয়ে গেছে। তখন তিনি বললেন, “এ চুলের রং পরিবর্তন করে দাও। তবে কালো রং পরিহার কর।” (মুসলিম)
হযরত ইমাম জুহরী বলেনঃ “আমাদের মুখমণ্ডল যখন তরতাজা ছিল নব্যতা ও তারুণ্যপূর্ণ ছিল, তখন আমরা কালো খেজাব ব্যবহার করেছি। কিন্তু যখন আমাদের মুখমণ্ডল ও দাঁতে পরিবর্তন শুরু হয়ে গেল, তখন আমরা তা ত্যাগ করেছি।”

রমযান

“যে লোক এই মাসটি পাবে সে যেন অবশ্যই এই মাসের রোজা পালন করে।” (আল কোরআন)
পবিত্র কোরআনে রোজাকে ‘রমাদান’ হিসেবে আখ্যায়িত করা হয়েছে। যার অর্থ জ্বালিয়ে, পুড়িয়ে দেয়া। ইসলামী শরীয়তের পরিভাষায় মহান আল্লাহর সন্তুষ্টির উদ্দেশ্যে ‘সুবহে সাদিক’ থেকে সূর্যাস্ত পর্যন্ত পানাহার ও যাবতীয় ইন্দ্রিয় তৃপ্তি থেকে বিরত থাকার নামই হচ্ছে রোজা। রোজা থেকে সঠিক ফায়দা হাসিলের জন্য নিন্মোক্ত মাসলাগুলো জানা একান্ত প্রয়োজন।

রমযানের প্রকারভেদ
রোজা ছয় প্রকার
১. ফরজ রোজাঃ রমযান মাসের রোজা।
২. ওয়াজিব রোজাঃ কাফ্ফারা রোজা, মানতের রোজা।
৩. সুন্নাত রোজাঃ আশুরার রোজা; (মহররম মাসের ৯, ১০ তারিখ), আরাফাত দিবস; (জিলহজ্জ মাসের ৯ তারিখ,) আইয়ামে বীযের রোজা; চাঁদের ১৩, ১৪, ১৫ তারিখ)

৪. নফল রোজাঃ
– ফরজ ওয়াজিব, সুন্নাত বাদে সব রোজা নফল। যেমন- শাওয়াল মাসে যে কোন ৬ দিন রোজা, শাবান মাসের ১৫ তারিখ রোজা রাখা, সোমবার ও বৃহস্পতিবার রোজা রাখা, জিলহজ্জ মাসের ১ম ৮ দিন রোজা রাখা।

৫. মাকরুহ রোজা
– শুধুমাত্র শনিবার বা রবিবার রোজা রাখা।
– শুধুমাত্র আশুরার দিন রোজা রাখা।
– স্বামীর অনুমতি ছাড়া নফল রোজা রাখা।
– মাঝে কোন বিরতি না দিয়ে ক্রমাগত রোজা রাখা।

৬. হারাম রোজাঃ বছরে নিুোক্ত ৫দিন রোজা রাখা হারাম
– ঈদুল ফিতরের দিন রোজা রাখা
– ঈদুল আযহার দিন রোজা রাখা
– ১১, ১২ ও ১৩ই জিলহজ্জ তারিখে রোজা রাখা।

রোজার ফরজঃ রোজার ফরজ ৩টি
১. নিয়ত করা
২. সব ধরণের পানাহার থেকে বিরত থাকা।
৩. ইন্দ্রিয় তৃপ্তি বা যৌন বাসনা পূরণ থেকে বিরত।

রোজা ফরজ হওয়ার শর্ত
১. মুসলিম হওয়া
২. বালেগ হওয়া
৩. অক্ষম না হওয়া।
৪. মহিলাদের হায়েজ ও নেফাস হতে পবিত্র হওয়া

রোজা ভঙ্গের কারণ 
এর জন্য শুধু কাজা রোজা রাখলেই চলবে।
১. কুলি করার সময় হঠাৎ গলার ভেতর পানি প্রবেশ করলে।
২. বলপূর্বক গলার ভিতর কোন কিছু ঢেলে দিলে।
৩. নাকে অথবা কানে ঔষধ ঢেলে দিলে।
৪. ইচ্ছে করে মুখ ভর্তি বমি করলে।
৫. অখাদ্য, যথা- কাঁকড়, মাটি, কাঠের টুকরো খেয়ে ফেললে।
৬. পায়খানার রাস্তায় বা গুহ্যদ্বারে পিচকারী দিলে।
৭. পেটে বা মস্তিষ্কে ঔষধ লাগানোর ফলে তার তেজ যদি উদর বা মস্তিষ্কে প্রবেশ করে।
৮. নিদ্রাবস্থায় পেটের ভিতর কিছু ঢুকলে।
৯. রাত আছে বা সূর্য ডুবে গেছে মনে করে কিছু খেলে।
১০. মুখে বমি আসার পর পুনরায় তা গিলে ফেললে।
১১. দাঁত থেকে ছোলা পরিমাণ কিছু বের করে তা গিলে ফেললে।

রোজার কাফ্ফারা
রোজার কোন একটি ফরজ ভঙ্গ করলে তার কাফফারা দেওয়া ওয়াজিব হয়।
১. একাধারে ৬১ টি রোজা রাখা (কাফ্ফারা ৬০টিও ভাঙ্গা ১টি)
২. একাধারে রোজা রাখতে অক্ষম হলে ৬০ জন গোলাম আযাদ বা মুক্ত করে দিতে হবে।
যেসব কারণে রোজা ভঙ্গ করা জায়েজ
১. এমন রোগে আক্রান্ত যে জীবননাশের আশংকা আছে।
২. হায়েজ, নেফাস ও সন্তান প্রসবকালে।
৩. সন্তান সম্ভবা, প্রসূতি মাতার ও দুগ্ধপোষ্য সন্তানের বিশেষ ক্ষতির আশংকা থাকলে।
৪. কোন বৃদ্ধ শক্তিহীন হলে।
৫. সফরকালে।
এ সমস্ত কারণে রমযান মাসে রোজা না রেখে অন্য সময় তা কাযা আদায় করলেই চলে।

হজ্ব ও কুরবানী

 মানুষের মধ্যে যার সামর্থ্য আছে আল্লাহর জন্য ঐ ঘরে হজ্জ্ব করা তার উপর কর্তব্য। (সূরা আলে ইমরান- ৯৭)

ইসলামের পাঁচটি ভিত্তির মধ্যে অন্যতম ভিত্তি হলো হজ্জ্ব। ত্যাগ, তিতিক্ষা ও প্রিয়বসত ুআল্লাহর সন্তুষ্টির জন্য উৎসর্গ করাই কুরবানী। হজ্জ্ব ও কুরবানীর রয়েছে অশেষ নেকী ও তাৎপর্য। মুসলিমদের গুরুত্বপূর্ণ এই ইবাদতগুলো সম্পর্কে সাধারণদের মধ্যে রয়েছে অনেক প্রশ্ন। তেমনি কিছু প্রশ্নের জবাব নিয়ে এবার ছাত্রী বার্তায় দেয়া হলো হজ্জ্ব ও কুরবানী সম্পর্কিত কিছু মাসলা-মাসায়েল।

হজ্জ্ব ফরয হয় কখন/হজ্জ্ব ফরয হওয়ার

১. মুসলমান হওয়া ২. প্রাপ্ত বয়স্ক হওয়া ৩. সুস্থ মসিতষ্ক হওয়া ৪) আযাদ হওয়া ৫. হজ্জ্ব পালনের দৈহিক ও আর্থিক সঙ্গতি থাকা শধ. হজ্জ্বের সময় হওয়া ৬. হজ্জ্ব যাত্রা পথের নিশ্চয়তা শধধধ. বিধর্মী, শত্রু রাষ্ট্রের নও মুসলিমের পক্ষে হজ্জ্ব ফরয হওয়ার জ্ঞান থাকা।

হজ্জ্বের ফরয

হজ্জ্বের ফরয ৩টি যথা- ১. ইহরাম বাঁধা ২. আরাফাতে অবস্থান করা (৯ জিলহজ্জ্ব) ৩. তাওয়াফ।

হজ্জ্বের ওয়াযিবসমূহ

১. মীকাতের আগেই ইহরাম বাঁধা ধধ. সূর্যাসত পর্যন্ত আরাফাতে অবস্থান করা

২. সাঈ করা  ধশ. মুযদালিফায় রাত্রি যাপন

৩. মুযদালিফার পর কমপক্ষে দুই রাত্রি মিনায় যাপন করা

৪. কঙ্কর নিক্ষেপ শধধ. হাদী (পশু) যবাই করা

৫. মাথা মুণ্ডানো বা চুল কাটা ধস. বিদায়ী তাওয়াফ

হজ্জ্বের কোন ওয়াজিব যদি ছুটে যায় তাহলে যা করনীয়

যে কোনো কারণেই হোক উপরে বর্ণিত কোন একটি ওয়াজিব ছুটে গেলে দম (অর্থাৎ পশু জবাই) দেয়া ওয়াজিব হয়ে যায়।

মীকাত

পরিমাণ দূরত্বে থেকে ইহরাম বাঁধতে হয়। ঐ জায়গাগুলোকে মীকাত বলা হয়। সহজে বুঝার জন্য এগুলোকে আমরা মাসজিদুল হারামের সীমান্তএলাকা বলতে পারি।

আরাফার দিনে হাজীদের জন্য আল্লাহর মর্যাদা ও ফযীলত

আরাফার দিনে হাজীদের আল্লাহ অনেক মর্যাদা দান করেছেন।

১.আরাফাতে অবস্থানকারী ও মাশাআরুল হারামবাসীকে আল্লাহ সেদিন ক্ষমা করে দেন। উমর (রাঃ) বলেন, এ ক্ষমা প্রদর্শন কেয়ামত পর্যন্তচালু থাকবে।

২.শয়তান ঐদিন সবচেয়ে বেশি লাঞ্ছিত, হীন ও নিকৃষ্ট বনে যায়।

৩. আল্লাহ সেদিন বলেনঃ এরা কি চায়? অর্থাৎ হাজীরা যা চায় তাই তিনি দিয়ে দেন।

হাদী ও কুরবানির সামর্থ্য ও হাজীদের জন্য হাদী ও কুরবানির হুকুম

হজ্জ্বের জন্য হাজী যে পশু জবাই করে তা হলো হাদী এবং ঈদুল আযহায় যে পশু জবাই হয় সেটি হচ্ছে কুরবানী। অর্থাৎ হাদী হজ্জ্ব উপলক্ষে, আর কুরবানী ঈদ উপলক্ষে। হাদী জবাই ওয়াজিব, কিন্ত্থ্ত্ত্ত্তুকুরবানী করা সুন্নাত।

তাওয়াফের সময়

উত্তম সময় হলো ১০ই যিলহজ্জ্ব ঈদের দিন কংকর নিক্ষেপ। কুরবানী করা ও চুল কাটার পর তাওয়াফ করা। তবে সেদিন ফজর উদয় হওয়ার পরই তাওয়াফের সময় শুরু হয়ে যায়।

মেয়েদের হজ্জ্বে যাবার ক্ষেত্রে মাসআলা

মহিলাদের হজ্জ্ব করার ক্ষেত্রে মাহরাম পুরুষ সাথে থাকতে হবে। এখানে গায়েরে মাহরাম হলে এই নিয়ম পালন হবে না।

শরীয়তে বদলী হজ্জ্ব করার ব্যাপারে  নির্দেশ

শরীয়তে বদলী হজ্জ্বের ব্যাপারে অনুমতি দেয়া আছে। তবে এক্ষেত্রে যে বিষয়গুলো লক্ষ্য রাখতে হবে-

– যে ব্যক্তি নিজে হজ্জ্ব করেনি, তার দ্বারা বদলী হজ্জ্ব করানো মাকরুহে তানযিহী অর্থাৎ হারামের কাছাকাছি পর্যায়ের।

উত্তম হচ্ছে যে ব্যক্তি নিজে হজ্জ্ব করেছে এমন ব্যক্তির দ্বারা বদলী হজ্জ্ব করানো।

– শরীয়ত সম্মত কারণ ছাড়া বদলী হজ্জ্ব করানো যাবেনা।

কি কি করণে বদলী হজ্জ্ব করানো যাবে

যে সব কারণে বদলী হজ্জ্ব করানো প্রয়োজন হয়ঃ

১. মৃত্য, ২. বন্দীত্ব, ৩. জীবনে আরোগ্য লাভের আশা নেই এমন পীড়া যেমন পক্ষাঘাত, অন্ধত্ব,৪. খোড়া হয়ে যাওয়া, ৫. এত বৃদ্ধ হয়ে যাওয়া যাতে বাহনের উপর বসারও ক্ষমতা থাকে না, ৬.. মহিলাদের সাথে মাহরাম না থাকা,৭. পথের নিরাপত্তা না থাকা।

উপরোক্ত ওযরসমূহের আমৃত্য অক্ষমতা থাকা শর্ত। চোখে ছানি পড়া, পা মচকে যাওয়া ইত্যাদি অস্থায়ী বা সাময়িক ওযর বদলী হজ্জ্বের জন্য যথেষ্ট নয়।

 

কুরবানী

কুরবানীর পশুর রক্ত মাংস আল্লাহর কাছে কিছুই পৌছেঁনা- বরঞ্চ তোমাদের পক্ষ থেকে তার কাছে পৌছেঁ  তোমাদের তাক্বওয়া। (সূরা হজ্জ্ব- ৩৭)

কুরবানীর তাৎপর্য ও গুরুত্ব

শরীয়তের পরিভাষায় কুরবানীর অর্থ- আল্লাহ তায়ালার সন্তুষ্টি লাভের উদ্দেশ্যে নির্দিষ্ট সময়ে নির্দিষ্ট পশু যবেহ করাকে কুরবানী বলা হয়। এর তাৎপর্য হলো- ত্যাগ, তিতিক্ষা ও প্রিয়বসতআল্লাহর সন্তুষ্টির জন্য উৎসর্গ করা।

কুরবানী আল্লাহর অত্যন্তপছন্দনীয় এক বিশেষ আমল। কুরআনে আল্লাহ তাআলা বার বার এর ফযীলত সম্পর্কে বলেছেন।

সূরা হাজ্জ্বের ৩৪ নং আয়াতে আল্লাহ বলেনঃ

আমি প্রত্যেক সম্প্রদায়ের জন্য কুরবানীর নিয়ম করে দিয়েছি। যাতে আমি তাদেরকে জীবনোপকরণ ¯^iƒc যে সব চতুষ্পদ জীবজন্তু দিয়েছি সেগুলোর উপর তারা আল্লাহর নাম উচ্চারণ করে।

কুরবানীর ফযীলত ও কুরবানী করলে কি পরিমাণ সওয়াব হয়

হযরত যায়িদ ইবনে আরকাম (রা.) থেকে বর্ণিত। রাসূল (সা.) বলেন- কুরবানীর পশুর প্রতিটি লোমের পরিবর্তে একটি করে নেকী পাবে।

অবশ্যই আল্লাহ মুত্তাকীদের কুরবানী কবুল করেন। (মায়েদা- ২৭)

কুরবানী ওয়াযিব হয় কোন ব্যক্তিদের উপর

যে ব্যক্তিদের উপর কুরবানী ওয়াযিবঃ

– যদি আকিল,বালিগ, মুকীম (মুসাফির নয় এমন ব্যক্তি) ১০ই যিলহজ্জ্ব ফজর হতে ১২ যিলহজ্জ্ব সন্ধ্যা পর্যন্তসময়ের মধ্যে নিসাব পরিমাণ সম্পদের মালিক হয় তবে তার উপর কুরবানী করা ওয়াজিব।

– কুরবানী ওয়াযিব হওয়ার জন্য যাকাতের নিসাবের মত সম্পদের এক বছর অতিবাহিত হওয়া শর্ত নয়। বরং যে অবস্থায় সাদকায়ে ফিতর ওয়াজিব হয় ঐ অবস্থায় কুরবানীও ওয়াজিব হবে।

– মুসাফির ব্যক্তির উপর কুরবানী ওয়াযিব নয়।

– কোনো মহিলা নিসাব পরিমাণ মালের মালিক হলে তার উপর কুরবানী ওয়াযিব।

– কুরবানী ওয়াযিব নয় এমন কোনো ব্যক্তি কুরবানীর নিয়তে পশু খরীদ করলে তার উপর কুরবানী করা ওয়াযিব হয়ে যায়।

 

কুরবানীর সময়কাল

কুরবানীর সময়কাল হলো যিলহজ্জ্বের ১০ তারিখ হতে ১২ তারিখ সূর্যাসেতর পূর্ব পর্যন্ত।

কুরবানীর গোশত বণ্টনের বিধান

– কুরবানীর গোশত বণ্টনের মুসতাহাব হলো-

তিনভাগ করে একভাগ পরিবার পরিজনের জন্য রাখবে, বাকী দুই ভাগের এক ভাগ AvZ¥xq-¯^Rb, বন্ধু-বান্ধবকে আর এক ভাগ গরীব মিসকীনকে বণ্টন করে দিবে।

– কুরবানীর গোশত কুরবানী দাতার জন্য বিক্রি করা মাকরুহে তাহরিমী। যদি কেউ বিক্রি করে তাহলে এর মূল্য সাদকা করা ওয়াজিব।

– কসাইকে কুরবানীর গোশত মজুরী হিসেবে দেয়া যাবে না।

কুরবানীর চামড়া কি করলে উত্তম

– কুরবানীর চামড়া দান করে দিবে এবং নিজেও ব্যবহার করতে পারবে। আর বিক্রি করলে তার মূল্য গরীব ও মিসকীনদের দান করতে হবে।

কুরবানী দেয়ার আগে যা আমল করতে  হবে

– কুরবানী দাতার জন্য মুসতাহাব হলো যিলহজ্জ্ব মাসের চাঁদ দেখার পর শরীরের কোনো অংশের চুল ও নখ না কাটা।

মৃত ব্যক্তি যদি কুরবানী করার অসিয়ত করে তাহলে এই ক্ষেত্রে নিয়ম

– যদি পিতার উপর কুরবানী ওয়াজিব হয় কিন্তুকোন কারণবশত সে কুরবানী করতে না পারে তবে তার পক্ষ হতে কুরবানী করার জন্য সন্তুানদেরকে অসিয়ত করা জরুরী। অসিয়ত করার পর যদি সে মারা যায় তবে তার সম্পদের এক তৃতীয়াংশ মাল হতে কুরবানী করবে।

তথ্যসূত্রঃ

১. জামে আত্‌ তিরমিযী

২. দৈনন্দিন জীবনে ইসলাম- ইসলামিক ফাউন্ডেশন

৩. হজ্জ্ব ও উমরা- অধ্যাপক মুহাম্মদ নুরুল ইসলাম

৪. এক নজরে হজ্জ্ব- অধ্যাপক মুজিবুর রহমান

৫. কুরবানীর শিক্ষা- খন্দকার আবুল খায়ের

প্রয়োজনীয় দোয়া-২

খাওয়ার পূর্বের দু

রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম বলেন : আল্লাহ যাকে আহার করালেন সে যেন বলে :

اَللَّهُمَّ بَارِكْ لَنَا فِيْهِ وَاَطْعِمْنَا خَيْرًا مِنْهُ –

অর্থ : হে আল্লাহ! তুমি আমাদের এই খাদ্যে বরকত দাও এবং এর চেয়ে উত্তম খাবার খাওয়ার ব্যবস্থা করে দাও।

আর আল্লাহ যাকে দুধ পান করালেন সে যেনো বলে :

اَللَّهُمَّ بَارِكْ لَنَا فِيْهِ وَزِدْنَا مِنْهُ –

অর্থ : হে আল্লাহ! তুমি আমাদের এই খাদ্যে বরকত দাও এবং এ খাদ্য আরো বেশি করে দাও। (তিরমিযি)

 

খাওয়ার পরের দু

اَللَّهُمَّ لِلَّهِ الَّذِىْ اَطْعَمَنِيْ هَذَا، وَرَزَقَنِيْهِ, مِنْ غَيْرِ حَوْلٍ مِنِّيْ وَلاَقُوَّةٍ –

অর্থ: সকল প্রশংসা সেই আল্লাহর জন্য যিনি আমাকে এই পানাহার করালেন এবং এর সামর্থ প্রদান করলেন। যাতে ছিল না আমার পক্ষ থেকে কোন উপায়-উদ্যোগ, ছিল না কোন শক্তি সামর্থ্য। (আবু দাউদ, আহমদ, ইবনে মাজাহ, তিরমিযি)

সুস্থতার জন্য দুআ

হযরত আয়েশা রাদিয়াল্লাহু তায়ালা আনহা থেকে বর্ণিত। নবী করীম রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহ আলাইহি ওয়া সাল্লাম নিজের পরিবারের কোনো রোগীকে দেখতে গেলে তার ওপর ডান হাত বুলাতেন এবং বলতেন :

اَللَّهُمَّ رَبِّ النَّاسِ اَذْهِبِ الْبَاْسَ اِشْفِ اَنْتَ الشَّافِىْ لاَشِفَاءً اِلاَّ شِفَاؤُكَ شِفَاءً لاَيُغَادِرُ سَقَمًا – مُتَّفَقٌ عَلَيْهِ

অর্থ: হে আল্লাহ! হে মানুষের প্রভু! রোগ দূর করুন, আরোগ্য দান করুন, আপনিই আরোগ্য দানকারী, আপনার আরোগ্য ব্যতীত আর কোন আরোগ্য কার্যকর নয়, এমন আরোগ্য যা কোনো রোগকে অবশিষ্ট রাখে না। (বুখারি ও মুসলিম)

নতুন কাপড় পরিধানের দু

اَللَّهُمَّ لَكَ الْحَمْدُ اَنْتَ كَسَوْتَنِيْهِ اَسْاَلُكَ مِنْ خَيْرِهِ وَخَيْرِ مَاصُنِعَ لَهُ، وَاَعُوْذُبِِكَ مِنْ شَرِّهُ وَشَرِّ مَاصُنِعَ لَهُ –

অর্থ : হে আল্লাহ! তোমারই জন্য সকল প্রশংসা। তুমিই এ কাপড় আমাকে পরিয়েছো। আমি তোমার কাছে এর মধ্যে নিহিত কল্যাণ ও এটি যে জন্য তৈরি করা হয়েছে সেসব কল্যাণ প্রার্থনা করি। আমি এর অনিষ্ট এবং এটি তৈরির অনিষ্ট থেকে তোমার আশ্রয় কামনা করি। (আবু দাউদ, তিরমিযি)

নতুন চাঁদ দেখে পড়ার দুআ

وَالسَّلاَمَةِ وَالاِسْلاَمِ، وَالتَّوْفِيْقِ لِمَا تُحِبُّ وَتَرْضي، رَبُّنَا وَرَبُّكَ اللهُ

অর্থ: আল্লাহ মহান! আয় আল্লাহ! এ নতুন চাঁদকে আমাদের জন্য নিরাপত্তা, ঈমান, শান্তি ও ইসলামের চাঁদ হিসেবে উপস্থাপন করো। যা তুমি ভালোবাস ও যাতে তুমি সন্তুষ্ট এ মাসে আমাদেরকে তা করার তাওফীক দাও। (হে চাঁদ) আমাদের প্রতিপালক ও তোমার প্রতিপালক একই আল্লাহ। (তিরমিযি, দারেমী) 

তারাবীহ নামাযের প্রয়োজনীয় দোয়া : চার রাকআত পড়ার পর পড়তে হয়

سُبْحَانَ ذِى الْمُلْكِ وَلْمَلَكُوْتِ سُبْحَانَ ذِى الْعِزَّةِ وَالْعَظَمَةِ وَالْهَيْبَةِ وَالْقُدْرَةِ وَالْكِبْرِيَاءِ وَالْجَبَرُوْتِ سُبْحَانَ الْمَلِكِ الْحَىِّ الَّذِىْ لاَيَنَامُ وَلاَيَمُوْتُ اَبَدًا سُبُّوْحٌ قُدُّوْسٌ رَبُّنَا وَرَبُّ الْمَلئِكَةِ وَالرُّوْحِ-

উচ্চারণ : সুবহানাজিল মুলকি ওয়াল মালাকুতি, সুবহানাজিল ইযযাতি, ওয়াল আযমাতি, ওয়াল হায়বাতি, ওয়াল কুদরাতি, ওয়াল কিবরিয়ায়ি, ওয়াল যাবারুতি। সুবহানাল মালিকিল হাইয়ীল্লাজি-লা-ইয়ানামু ওয়ালা ইয়ামুতু, আবাদান আবাদা, সুব্বুহুন, কুদ্দুসুন, রাব্বুনা ওয়া রাব্বুল মালায়িকাতি ওয়াররুহ।

অর্থ: আমি তাঁরই পবিত্রতা বর্ণনা করছি, যিনি বাদশাহ ও ফিরিশতাদের কর্তা। আমি তাঁরই পবিত্রতা ঘোষণা করছি যিনি মানব সম্ভ্রমের কর্তা এবং মহিয়ান। ভয়দাতা, শক্তিশালী গৌরবান্বিত, বৃহত্তম। আমি সেই চির জীবন্ত বাদশাহর পবিত্রতা প্রচার করছি, যিনি বিশ্রাম গ্রহণ করেন না। এমন যিনি পুতঃপবিত্র, তিনিই আমাদের প্রতিপালক এবং ফেরেশতা ও আত্মাগুলোর পালনকর্তা।

তাহাজ্জুদ সালাতে উঠে দুআ

আবু দাউদে আয়েশা রাদিয়াল্লাহু তায়ালা আনহা থেকে বর্ণিত হয়েছে, রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহ আলাইহি ওয়া সাল্লাম যখন রাতে ঘুম থেকে জাগতেন, তখন বলতেন :

অর্থ: তুমি ছাড়া কোনো হুকুমকর্তা ও মুক্তিদাতা প্রভু নেই। সকল প্রকার ত্রুটি-বিচ্যুতি ও দূর্বলতা থেকে মুক্ত পবিত্র তুমি। আমি তোমারই প্রশংসা করি হে আল্লাহ! আমার অপরাধের জন্যে আমি তোমার কাছে ক্ষমা চাই। আমি তোমার অনুগ্রহ চাই। আয় আল্লাহ, আমার জ্ঞান বৃদ্ধি করে দাও। সঠিক পথ দেখাবার পর আমার অন্তরকে আর বিপথগামী করো না। তোমার অনুগ্রহ আমাকে দান করো। অবশ্যই তুমি অতিশয়
মহান দাতা।

প্রতিদিন প্রতিক্ষণ আল্লাহকে স্মরণ

رَبِّ زِدْنِىْ عِلْمًا

অর্থ : হে আমার রব! আমার জ্ঞান বৃদ্ধি করে দাও। (সূরা তাহা : ১১৪)

ইসতিগফার (ক্ষমা প্রার্থনা করার সর্বশ্রেষ্ঠ দুআ)

اَسْتَغْفِرُاللَهَ الْعَظِيْمِ الَّذِىْ لَا اِلٰهَ اِلَّا هُوَ الْحَىُّ الْقَيُّوْمُ وَاَتُوْبُ اِلَيْهِ ”

অর্থ : (আমি মহান আল্লাহর নিকট ক্ষমা প্রার্থনা করছি যে চিরঞ্জীব চিরস্থায়ী সত্তা ছাড়া আর কোন ইলাহ নেই এবং আমি তাঁরই নিকট প্রত্যাবর্তন করছি।

দুনিয়া আখেরাতের কল্যাণের জন্য দুআ

رَبَّنَا إِنَّنَا آمَنَّا فَاغْفِرْ لَنَا ذُنُوبَنَا وَقِنَا عَذَابَ النَّارِ ”

অর্থ : হে আমাদের প্রভু! আমাদিগকে ইহকালে কল্যাণ দান কর এবং পরকালেও কল্যাণ (দান কর) এবং আমাদিগকে দোযখের শাস্তি থেকে রক্ষা কর। (সূরা বাকারাহ : ২০১)

হেদায়েত লাভের দুআ

اَللَّهُمَّ إِنِّي أَسْأَلُكَ الْهُدَى وَالتُّقَى وَالْعَفَافَ وَالْغِنَى ”

অর্থ : হে আল্লাহ! আমি আপনার নিকট হেদায়েত, পরহেযগারিতা, ক্ষমা ও অমুখাপেক্ষিতা প্রার্থনা করছি। (তিরমিযী ৩৪৮৯, ইবনে মাজাহ ৩৮৩২)

 

রব্বানা লা তুযিগ্‌ ক্বুলুবানা বা’দা ইয হাদাইতানা ওয়াহাব্‌ লানা মিল্লাদুংকা রাহ্‌মাতান ইন্নাকা আংতাল ওয়াহ্‌হাব।

(সূরা আলে ইমরান ঃ ৮)

 

“প্রভু হে, একবার যখন দয়া করে হেদায়াত দান করেছে। অতএব আর কখনও আমাদের দিলকে বাঁকা পথে যেতে দিও না তোমার পথ থেকে। আমাদের উপর রহমত বর্ষণ কর। তুমি অবশ্যই মহান দাতা।” (সূরা আলে ইমরান ঃ ৮)

ফাতিরস্‌সামা ওয়াতি ওয়াল আরদি আংতা ওয়ালিইয়্যি ফিদ্দুনয়া ওয়াল আখিরাতি। তাওয়াফ্‌ফানি মুসলিমাও ওয়াল্‌ হিক্বনি বিস্‌সালিহীন। (সূরা  ইউসুফ ঃ ১০১)

 

‘‘হে আসমান-জমীন তথা গোটা বিশ্বপ্রকৃতির স্রষ্টা, তুমি আমার ইহকালেরও প্রভু, পরকালেরও প্রভু। তুমি আমাকে নেক বান্দাদের মধ্যে আমাকে শামিল কর।” (সূরা ইউসুফ ঃ ১০১)

 

 কুরআন তিলাওয়াত শেষে দুআ

 

اللَّهُمَّ ارزُقْنِىْ التَّفَكُّرُ وَالتَّدَبُّرَ بِمَا يَتْلُوْهُ لِسَانِىْ مِنْ كِتَابِكَ ، وَالْفَهْمَ لَهُ، وَالْمَعرِفَةَ بِمَعَانِيْهِ ، وَالنَّظرَ فِىْ غَجَآئِبِهِ ، وَالْعَمَلَ بِذٰلِك مَا بَقِيْتُ اِنَّكَ علىٰ كلِّى شَيءٍ قديرٌ ”

অর্থ: হে আল্লাহ! আমার যবান তোমার কিতাবের যে অংশ পাঠ করে, তাতে চিন্তা ও গবেষণা করার তাওফীক দাও। আমাকে তা বোঝার ও হৃদয়ঙ্গম করার শক্তি দাও। তার রহস্যগুলো অবলোকন করার এবং আমার বাকি জীবন তার ওপর আমল করার তাওফীক দাও। নিশ্চয়ই তুমি সকল বস্তুর ওপর ক্ষমতাবান।

 

اَللَّهُمَّ إِنِّي أَعُوذُ بِكَ مِنْ الْعَجْزِ وَالْكَسَلِ، وَالْبُخْلِ وَالْهَرَمِ وَعَذَابِ الْقَبْرِ اللَّهُمَّ آتِ نَفْسِي تَقْوَاهَا وَزَكِّهَا أَنْتَ خَيْرُ مَنْ زَكَّاهَا أَنْتَ وَلِيُّهَا وَمَوْلَاهَا اللَّهُمَّ إِنِّي أَعُوذُ بِكَ مِنْ عِلْمٍ لَا يَنْفَعُ وَمِنْ قَلْبٍ لَا يَخْشَعُ وَمِنْ نَفْسٍ لَا تَشْبَعُ وَمِنْ دَعْوَةٍ لَا يُسْتَجَابُ لَهَا ”

অর্থ : হে আল্লাহ! আমি আশ্রয় চাচ্ছি তোমার কাছে অক্ষমতা ও আলস্য থেকে, কার্পণ্য ও বার্ধক্য থেকে এবং কবরের আযাব থেকে। হে আল্লাহ! আমার নফসকে তাকওয়া দান কর এবং তাকে পাক করে দাও। তুমি সবচাইতে পাকপবিত্রকারী। তুমি তার অভিভাবক ও মালিক। হে আল্লাহ! আমি তোমার কাছে আশ্রয় চাই অনুপকারী ইলম থেকে, আল্লাহর ভয়শূন্য হৃদয় থেকে, অতৃপ্ত নফস থেকে এবং এমন দু’আ থেকে যা কবুল হয় না।

 

اللَّهُمَّ إِنِّي أَسْأَلُكَ حُبَّكَ وَحُبَّ مَنْ يُحِبُّكَ وَالْعَمَلَ الَّذِي يُبَلِّغُنِي حُبَّكَ ، اللَّهُمَّ اجْعَلْ حُبَّكَ أَحَبَّ إِلَيَّ مِنَ الْمَاءِ الْبَارِدِ ”

অর্থ : হে আল্লাহ! আমি তোমার কাছে তোমার ভালবাসা প্রার্থনা করছি এবং সেই ব্যক্তির ভালবাসা প্রার্থনা করছি, যে তোমাকে ভালবাসে, আর এমন “আমল প্রার্থনা করছি, যা আমাকে তোমার ভালবাসার কাছে পৌঁছিয়ে দেবে। হে আল্লাহ! তোমার ভালবাসাকে আমার কাছে আমার প্রাণ, আমার পরিবার-পরিজন ও ঠাণ্ডা পানির চাইতে বেশি প্রিয় করো।

 

وعَنْ أَنَسٍ رَضي اللَّه عنْهُ قَالَ كانَ أَكْثَرُ دُعَاءِ النبيِّ صَلّى اللهُ عَلَيْهِ وسَلَّم : اَللَّهُمَّ آتِنَا في الدُّنْيَا حَسَنَةً ، وفي الآخِرةِ حَسنَةً ، وَقِنَا عَذابَ النَّارِ গ্ধ مُتَّفَقٌ عليهِ ” زَادَ مُسْلِمُ فِىْ رِوَايَتِه قَالَ وَكَانَ أَنَسٌ إِذَا أَرَادَ أَنْ يَدْعُوَ بِدَعْوَةٍ دَعَا بِهَا ، فَإِذَا أَرَادَ أَنْ يَدْعُوَ بِدُعَاءٍ دَعَا بِهَا فِيهِ ”

আনাস (রা.) থেকে বর্ণিত। তিনি বলেন, নবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম অধিকাংশ সময় এই দু’আ করতেন : “হে আল্লাহ! আমাকে দুনিয়াতে কল্যাণ ও আখিরাতে কল্যাণ দান কর এবং জাহান্নামের আযাব থেকে আমাকে বাঁচাও” ইমাম বুখারী ও ইমাম মুসলিম হাদীসটি বর্ণনা করেছেন। ইমাম মুসলিমের বর্ণনাতে আরো আছে : হযরত আনাস (রা.) যখন কোন দু’আ করতে চাইতেন তখন এই দু’আটিই করতেন এবং যখন অন্য কোন দু’আ করতে চাইতেন তখন এ দু’আটিও তার মধ্যে শামিল করতেন।

 

عَنْ أَبِي هُرَيْرَةَ رَضِيَ اللهُ عَنْهُ قَالَ كَانَ رَسُولُ اللهِ صَلَّى اللهُ عَلَيْهِ وَسَلَّمَ يَقُوْلُ:  اللَّهُمَّ اَصْلِحْ لِىْ دِيْنِ الَّذِىْ هُوَ عَصِمَةُ أمري، اَصْلِحْ لِىْ دُنْيَايَ الَّتِيْ فِيْهَا مَعَاشْيْ، اَصْلِحْ لِىْ آخِرَتِيْ الَّتْيْ فِيْهَا مَعَادِيْ، وَاجْعَلِ الْحَيَاةَ زِيَادَةً لِيْ فِيْ كُلِّ خَيْرٍ، وَاجْعَلِ الْمَوْتَ رَاحَةً لِيْ مِنْ كُلَّ شَرٍّ – رَوَاهُ مُسْلِمٌ ”

আবু হুরাইরা (রা.) থেকে বর্ণিত। তিনি বলেন, রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম দুআ করতেন : “হে আল্লাহ! আমার দীনকে আমার জন্য সংশোধন করে দাও, যা আমার কাজের সংরক্ষক, আমার দুনিয়াকে আমার জন্য সংশোধন করে দাও, যার মধ্যে রয়েছে আমার জীবন-জীবিকা, আমার আখিরাতকে আমার জন্য সুশোভন করে দাও যেখানে আমাকে ফিরে যেতে হবে। প্রত্যেক নেক কাজে আমার হায়াত বাড়িয়ে দাও এবং প্রত্যেক খারাপ কাজ থেকে মৃত্যুকে আমার জন্য আরামের কারণে পরিণত কর।”

ধৈর্যধারণের দোয়া:

রব্বানা আফ্‌রিগ্‌ আলাইনা সব্‌রাওওয়া সাব্বিত আক্বদামানা ওয়ান্‌সুরনা আলাল ক্বাওমিল কাফিরিন।

(সূরা আল বাকারা ঃ ২৫০)

“হে আমাদের প্রভু, আমাদেরকে ধৈর্যধারণের ক্ষমতা দাও। আমাদের কদমকে সুদৃঢ় কর এবং কাফেরদের উপর বিজয় দান কর।”   -(সূরা আল বাকারা ঃ ২৫০)

 

কাফেরদের উপর বিজয় দান করার দোয়া:

 

রব্বানা লা তুয়াখিয্‌না ইন্নাসিনা আও আখ্‌তনা রব্বানা ওয়ালা তাহ্‌মিল আলাইনা ইস্‌রান কামা হামাল্‌তাহূ আলাল্লাযিনা মিং ক্বাব্‌লিনা রব্বানা ওয়ালা তুহাম্‌মিল্‌না মা লা ত্বক্বাতা লানা বিহি, ওয়া’ফু আন্না, ওয়াগ্‌ফিরলানা ওয়ার্‌হাম্‌না আন্‌তা মাওলানা ফাংসুরনা আলাল ক্বাওমিল কাফিরিন। -(সূরা আল বাকারা ঃ ২৮৬)

 

‘‘হে আমাদের রব, আমরা যদি ভুল করে থাকি বা ছোটখাট ত্রুটি করে থাকি তাহলে তুমি সেগুলোর ব্যাপারে আমাদেরকে পাকড়াও করো না। আমাদের উপর সেই রূপ কঠিন বোঝা (পরীক্ষা বা আযাব) চাপিয়ো না যেরূপ বোঝা চাপিয়েছ আমাদের পূর্ববর্তীদের উপর। আর তেমন বোঝাও চাপিও না যেমনটি বহনের শক্তি আমাদের নেই। তুমি আমাদের ত্রুটি-বিচ্যুতি মার্জনা কর। অপরাধ ক্ষমা কর। আমাদের উপর রহম কর। তুমি আমাদের প্রভু। অতএব আমাদেরকে কাফেরদের উপর বিজয় দান কার।” -(সূরা আল বাকারা ঃ ২৮৬)

 

গোনাহ মাফের দোয়া:

রব্বানাগ্‌ফিরলানা যুনুবানা ওয়া ইসরাফানা ফি আম্‌রিনা ওয়াসাব্বিত রব্বানা আক্‌দামানা ওয়ান্‌সুর্‌না আলাল্‌ ক্বাওমিল কাফিরিন। (সূরা আলে ইমরান ঃ ১৪৭)

“হে আমাদের রব আমাদের গোনাহ মাফ কর এবং আমাদের কাজে কোন বাড়াবাড়ী হয়ে থাকলে তাও ক্ষমা কর। আমাদের কদমকে মজবুত কর। আর কাফেরদের উপর বিজয় দান কর।” (সূরা আলে ইমরান ঃ ১৪৭)

রব্বানা মা খালাক্বতা হাযা বাতিলান, সুব্‌হানাকা ফাক্বিনা আযাবান্নার, রব্বানা ইন্নাকা মান্‌ তুদখিলিন্নার, ফাক্বাদ আখ্‌যাইতাহু। ওয়ামা লিয়্‌যালিমিনা মিন আংসার রব্বানা ইন্নানা সামি’না মুনাদিয়াইয়ুনাদি লিল্‌ইমানি আন্‌ আমিনু বিরাব্বিকুম ফাআমান্না, রব্বানা ফাগ্‌ফিরলানা যুনুবানা ওয়াকাফ্‌ফির আন্না সাইয়ি আতিনা ওয়াতাওয়অফ্‌ফানা মায়্যল আব্‌রার, রব্বানা ওয়া আতিনা মা ওয়াদ্‌তানা আলা রসুলিকা ওয়ালা তুখযিনা ইয়াওমাল ক্বিয়ামাহ ইন্নাকা লা তুখ্‌লিফুল মি আদ।

(সূরা আলে ইমরান ঃ১৯১-১৯৪)

“হে আমাদের রব, তুমি এ সৃষ্টিজগতের কোন কিছুই অর্থহীনভাবে সৃষ্টি করনি। তুমি পুতঃপবিত্র। অতএব আমাদের দোযখের আগুন থেকে নাজাত দাও। হে প্রভু, তুমি যাদেরকে দোযখের আগুন থেকে নাজাত দাও। হে প্রভু, তুমি যাদেরকে দোযখে ঢুকাবে তাকে অবশ্য অবশ্যই লাঞ্ছিত করে ছাড়বে। আর কোন জালেমের জন্য সেদিন কোন সাহায্যকারী থাকবে না। হে প্রভু, আমরা একজন আহ্বানকারীকে এই মর্মে আহ্বান করতে শুনেছি, ‘ তোমাদের রবের পথে ঈমান আন।’ অতপর আমরা ঈমান এনেছি। অতএব, হে আমাদের রব, তুমি আমাদের গোনাহ মাফ কর। ত্রুটি-বিচ্যুতি মার্জনা কর। আর আমাদেরকে তোমার নেক বান্দাদের সাথে থাকার তৌফিক দিও। হে প্রভু, তুমি তোমার রাসূলের মাধ্যমে আমাদেরকে যা কিছু দেবার ওয়াদা করেছ তা দাও। কিয়ামতের সেই দিনে আমাদের লাঞ্ছিত কর না। তুমি তো কখনই ওয়াদা খেলাপ কর না।”

(সূরা আলে ইমরান ঃ ১৯১-১৯৪)

রব্বানা যলাম্‌না আংফুসানা ওয়াইল্লাম তাগ্‌ফিরলানা ওয়াতার্‌হাম্‌না লানাকুনান্না মিনাল খসিরিন। (সূরা আল আরাফ ঃ ২৩)

“হে আমাদের রব! আমরা তো আমাদের নফসের উপর জুলুম করেছি। তুমি যদি ক্ষমা না কর, রহমত না কর, তাহলে তো আমরা অবশ্য অবশ্যই ধ্বংস হয়ে যাব।” (সূরা আল আরাফ ঃ ২৩)

রব্বানাগ্‌ফির্‌ লানা ওয়ালিইখ্‌ওয়ানিনা আল্লাযিনা সাবাক্বুনা বিল্‌ঈমানি ওয়ালা তাজ্‌আল ফি কুলুবিনা গিল্লাললিল্লাযিনা আমানু রব্বানা ইন্নাকা রউফুর রাহীম। (সূরা আল হাশরঃ ১০)

“হে আমাদের পরোয়ারদেগার, আমাদেরকে ক্ষমা কর আর আমাদের ঐ সকল ভাইদেরকে ক্ষমা কর যারা ঈমানের ক্ষেত্রে আমাদের চেয়ে অগ্রগামী। আমাদের মনে কোন ঈমানদারের জন্যে কোন প্রকারের সংকীর্ণতা ও ঈর্ষাপরায়ণতার ভাব সৃষ্টি হতে দিও না। তুমি তো অতীব দয়ালু এবং মেহেরবান।” (সূরা আল হাশর ঃ ১০)

 

রব্ব্‌িজ আল্‌নি মুক্বিমাস্‌ সলাতি ওয়া মিন যুররিয়্যাতি রব্বানা ওয়াতাক্বাবাল দুআ। (সূরা ইবরাহীম ঃ৪০)

“হে আমার মুনীব ! আমাকে, আমার সন্তানদেরকে সালাত কায়েমকারী বানাও। হে পরোয়ারদেগার আমার দোয়া কবুল কর।” (সূরা ইবরাহীম ঃ ৪০)

 

রব্বানাগ্‌ফিরলি ওয়ালি ওয়ালি দাইয়া ওয়ালিল্‌ মু’মিনিনা ইয়াওমা ইয়াকুমুল হিসাব্‌ -(সূরা ইব্‌রাহীম ঃ ৪১)

“হে আমাদের পরোয়ারদেগার, আমাকে, আমার মা-বাপকে ও সমস্ত মুসলিমদেরকে সেই দিনে রক্ষা কর, যেদিন আমাদের সবার হিসেব হবে।”  (সূরা ইবরাহীম ঃ ৪১)

বাবা-মার জন্য দোয়া:

রব্বির্‌ হামহুমা কামা রব্বা ইয়ানি সগিরা। (বনি ইসরাঈল ২৪)

“হে পরোয়ারদেগার, আমাদের মা-বাপের প্রতি তেমনি দয়া কর, যেমন দয়া মায়া সহ তারা আমাদেরকে ছোটবেলায় লালন-পালন করেছেন।”  (বনি ইসরাঈল ঃ ২৪)

 

রব্বানা হাবলানা মিন আযওয়াজিনা ওয়া যুররিয়্যাতিনা ক্বুররাতা আ’য়ুনিন, ওয়াজ্‌আলনা লিল্‌মুত্তাক্বিনা ইমামা।

(সূরা আল ফুরকান ঃ৭৪)

“হে আমাদের রব, আমাদেরকে এমন জীবন সাথী এবং সন্তান দাও যাতে আমাদের চক্ষু শীতল হয়। আর আমাদের সবাইকে মুত্তাকীদের জন্য অনুসরণযোগ্য আদর্শ রূপে গড়ে উঠার তৌফিক দাও।” -(সূরা আল ফুরকান ঃ ৭৪)

 

পায়খানা থেকে বের হওয়ার দোয়া:

غُفْرَانَكَ».

বাংলা উচ্চারণ : গুফরা-নাকা

বাংলা অর্থ : “আমি আপনার কাছে ক্ষমাপ্রার্থী।” [আবূ দাউদ, নং ৩০; তিরমিযী, নং ৭; ইবন মাজাহ্‌, নং ৩০০।

 

পায়খানায় প্রবেশ করার দোয়া:

বাংলা উচ্চারণ : [বিসমিল্লাহি] আল্লা-হুম্মা ইন্নী আ‘ঊযু বিকা মিনাল খুব্‌সি ওয়াল খাবা-ইসি।

বাংলা অর্থ : “[আল্লাহ্‌র নামে।] হে আল্লাহ! আমি আপনার নিকট অপবিত্র নর জিন্ ও নারী জিন্ থেকে আশ্রয় চাই”। [বুখারী ১/৪৫, নং ১৪২; মুসলিম ১/২৮৩, নং ৩৭৫।

প্রয়োজনীয় কিছু দোয়া

আল্লাহর সাথে সম্পর্ক বৃদ্ধির দোয়া :

فَاطِرَ السَّمَاوَاتِ وَالْأَرْضِ أَنْتَ وَلِيِّيْ فِيْ الدُّنْيَا وَالْآخِرَةِ تَوَفَّنِيْ مُسْلِمًا وَأَلْحِقْنِيْ بِالصَّالِحِيْنَ.­

“হে আসমান ও যমিনের স্রষ্টা, দুনিয়া ও আখিরাতে তুমিই আমার অভিভাবক ও মুরুব্বি। মুসলিম অবস্থায় আমাকে মৃত্যু দাও এবং আমাকে নেক লোকদের মধ্যে শামিল কর।”  (সূরা ইউসুফ-১০১)

رَبَّنَآ آتِنَا مِن لَّدُنكَ رَحْمَةً وَهَيِّئْ لَنَا مِنْ أَمْرِنَا رَشَداً

“হে আমাদের রব! আমাদেরকে তোমার খাস রহমত দ্বারা ধন্য কর এবং আমাদের সকল বিষয় ভালোভাবে ঠিক করে দাও।” (সূরা কাহাফ-১০)

আল্লাহর পছন্দনীয় পথে চলার দোয়া:

اَللَّهُمَّ وَفِّقْنَا لِمَا تُحِبُّ وَتَرْضَى مِنَ الْقَوْلِ وَالْفِعْلِ وَالْعَمَلِ وَالنِّيَّةِ وَالْهُدَى, إِنَّكَ عَلَى كُلِّ شَيْءٍ قَدِيْرٌ

“হে আল্লাহ! আমাদেরকে কথা বলায়, দুনিয়ার কাজে ও দ্বীনি আমলে, নিয়ত করায় ও হেদায়াত পালনে এমনভাবে চলার তাওফীক দাও যাতে তুমি পছন্দ কর ও খুশি হও। নিশ্চয় তুমি সর্বশক্তিমান।”­­  ( আল হাদীস)

وَقُل رَّبِّ أَدْخِلْنِى مُدْخَلَ صِدْقٍ وَأَخْرِجْنِى مُخْرَجَ صِدْقٍ وَٱجْعَل لِّى مِن لَّدُنْكَ سُلْطَاناً نَّصِيراً

“হে আমার পরওয়ারদিগার! আমাকে যেখানেই তুমি নিয়ে যাও সত্যতার সাথে নিয়ে যাও এবং যেখান থেকেই বের করো সত্যতার সাথে বের করো। এবং তোমার পক্ষ থেকে একটি কর্তৃত্বশীল পরাক্রান্ত শক্তিকে আমার সাহায্যকারী বানিয়ে দাও।” (বনী ইসরাঈল-৮০ )

জ্ঞান বৃদ্ধির দোয়া :­­­

رَبِّ اشْرَحْ لِي صَدْرِي   وَيَسِّرْ لِي أَمْرِي    وَاحْلُلْ عُقْدَةً مِنْ لِسَانِي    يَفْقَهُوا قَوْلِي

“হে প্রভু। আমার অন্তরকে প্রশস্ত করে দাও, আমার কাজকে আমার জন্য সহজ করে দাও এবং আমাদের মুখের জড়তা দূর করে দাও।”  (সূরা ত্বাহা-২৫-২৮)

ঈমানদারদের সার্বক্ষনিক দোয়া:

الَّذِينَ يَذْكُرُونَ اللَّهَ قِيَامًا وَقُعُودًا وَعَلَى جُنُوبِهِمْ وَيَتَفَكَّرُونَ فِي خَلْقِ السَّمَوَاتِ وَالْأَرْضِ رَبَّنَا مَا خَلَقْتَ هَذَا بَاطِلًا سُبْحَانَكَ فَقِنَا عَذَابَ النَّارِ- رَبَّنَا إِنَّكَ مَنْ تُدْخِلِ النَّارَ فَقَدْ أَخْزَيْتَهُ وَمَا لِلظَّالِمِينَ مِنْ أَنْصَارٍ-  رَبَّنَا إِنَّنَا سَمِعْنَا مُنَادِيًا يُنَادِي لِلْإِيمَانِ أَنْ آَمِنُوا بِرَبِّكُمْ فَآَمَنَّا رَبَّنَا فَاغْفِرْ لَنَا ذُنُوبَنَا وَكَفِّرْ عَنَّا سَيِّئَاتِنَا وَتَوَفَّنَا مَعَ الْأَبْرَارِ-  رَبَّنَا وَآَتِنَا مَا وَعَدْتَنَا عَلَى رُسُلِكَ وَلَا تُخْزِنَا يَوْمَ الْقِيَامَةِ إِنَّكَ لَا تُخْلِفُ الْمِيعَادَ .

­“ হে প্রভু! জাহান্নামের আযাব থেকে আমাদের রক্ষা করো। তুমি যাকে জাহান্নামে ফেলে দিয়েছো, তাকে আসলে বড়ই লাঞ্চনা ও অপমানের মধ্যে ঠেলে দিয়েছো এবং এহেন জালেমদের কোন সাহায্যকারী হবে না। হে আমাদের মালিক!  আমরা একজন আহ্বানকারীর আহ্বান শুনেছিলাম। তিনি ঈমানের দিকে আহ্বান করছিলেন। তিনি বলছিলেন, তোমরা নিজেদের রবকে মেনে নাও।  আমরা তার আহ্বান গ্রহণ করেছি। কাজেই হে আমাদের প্রভু!  আমরা যেসব গোনাহ করছি তা মাফ করে দাও।  আমাদের মধ্যে যেসব অসৎবৃত্তি আছে সেগুলো আমাদের থেকে দূর করে দাও এবং নেক লোকদের সাথে আমাদের শেষ পরিণতি দান করো। হে আমাদের রব!  তোমার রাসূলদের মাধ্যমে তুমি যেসব ওয়াদা করেছো আমাদের সাথে, সেগুলো পূর্ণ করো এবং কিয়ামতের দিন আমাদের লাঞ্চনার গর্তে ফেলে দিয়ো না। নি:সন্দেহে তুমি ওয়াদা খেলাফকারী bI|” (সূরা আল ইমরান: ১৯১-১৯৪)

পরিবার পরিজনের জন্য দোয়া :

رَبَّنَا هَبْ لَنَا مِنْ أَزْوَاجِنَا وَذُرِّيَّاتِنَا قُرَّةَ أَعْيُنْ وَجَعَلْنَا لِلْمُتَّقِيْنَ إِمَامَا

“হে আমাদের প্রতিপালক। আমাদের জন্য এমন জীবনসঙ্গী ও সন্তান-সন্ততি দান করুন যারা আমাদের জন্য চক্ষুশীতলকারী এবং আমাদের মুত্তাকীদের নেতা বানিয়ে দিন।”  (সূরা ফুরকান-৭৪)

যানবাহনে চড়ার দোয়া :

سُبْحَانَ الَّذِيْ سَخَّرَ لَنَا هَذَا وَمَا كُنَّا لَهُ مُقْرِنِيْنَ   وَإِنَّا إِلَى رَبِّنَا لَمُنْقَلِبُوْنَ

“পবিত্র সেই সত্ত্বা যিনি এটাকে অনুগত করে দিয়েছেন, অথচ আমাদের জন্য এটাকে অনুগত বানানো দুস্কর ছিল। আর নিশ্চয়ই আমরা সকলেই মহান প্রভুর দিকে  প্রত্যাবর্তনকারী।”   (সূরা যুখরাফ-১৩, ১৪)

নেক লোকদের জন্য দোয়া :

رَبَّنَا اغْفِرْ لَنَا وَلِإِخْوَانِنَا الَّذِيْنَ سَبَقُوْنَا بِالْإِيْمَانِ وَلَا تَجْعَلْ فِيْ قَلُوْبِنَا غِلًّا لِلَّذِيْنَ آمَنُوْا رَبَّنَا إِنَّكَ رَوُؤْفٌ رَّحِيْمٌ.

“হে আমাদের প্রতিপালক! আমাদেরকে ও আমাদের সেই সব ভাইদের ক্ষমা কর, যারা আমাদের পূর্বে ঈমান এনেছে। আর আমাদের অন্তরে ঈমানদার লোকদের জন্য হিংসা ও শত্রুতার ভাব রেখ না। হে আমাদের প্রভু! তুমি বড়ই অনুগ্রহ সম্পন্ন করুণাময়।” (সূরা হাশর : ১০)

সবরের দোয়া :

رَبَّنَآ أَفْرِغْ عَلَيْنَا صَبْراً وَتَوَفَّنَا مُسْلِمِينَ

“হে আমাদের রব! আমাদের সবর দান করো এবং তোমার অনুগত থাকা অবস্থায় আমাদের দুনিয়া থেকে উঠিয়ে নাও।” (সূরা আরাফ:১২৬)

শয়তান থেকে আশ্রয়ের দোয়া:

.وَأَعُوذُ بِكَ رَبِّ أَن يَحْضُرُونِ .وَقُلْ رَّبِّ أَعُوذُ بِكَ مِنْ هَمَزَاتِ ٱلشَّياطِينِ

“হে আমার রব! আমি শয়তানের উস্কানি থেকে তোমার আশ্রয় চাই। এমনকি হে পরওয়ারদিগার! সে আমার কাছে আসুক এ থেকেও আমি তোমার আশ্রয় চাই।”  (সূরা মুমিনুন:৯৭-৯৮)

সফরের দোয়া:

اَللَّهُمَّ إِنَّا نَسْأَلُكَ  فِيْ سَفَرِنَا هَذَا الْبِرَّ وَالتَّقْوَى, وَمِنَ الْعَمَلِ مَا تَرْضَى , اَللَّهُمَّ هَوِّنْ عَلَيْنَا سَفَرَنَا هَذَا وَاطْوِ عَنَّا بُعْدَهُ , اَللَّهُمَّ أَنْتَ الصَّاحِبُ فِيْ السَّفَرِ, وَالْخَلِيْفَةُ فِيْ الْأَهْلِ, اَللَّهُمَّ إِنِّيْ  أَعُوْذُبِكَ مِنْ وَعْشَاءِ السَّفَرِ, وَكَابَةِ الْمَنْظَرِ, وَسُوْءِ الْمُنْقَلَبِ فِيْ الْمَالِ وَالْأَهْلِ.

“হে আল্লাহ!  আমরা এই সফরে তোমার নিকট প্রার্থনা করছি পূণ্য ও তাকওয়ার। আমরা এমন আমল করার তাওফিক চাই যাতে তুমি খুশি হও। হে আল্লাহ! আমাদের এ সফরকে সহজ করে দাও। এর দূরত্ব আমাদের জন্য কমিয়ে দাও। হে আল্লাহ! তুমিই এ সফরে আমাদের সাথী। আর পরিবার পরিজনের তুমি রক্ষণাবেক্ষণকারী। হে আল্লাহ! আমরা আশ্রয় প্রার্থনা করছি সফরের কষ্ট হতে, খারাপ দৃশ্য দর্শন হতে এবং ফেরার পর সম্পদ ও পরিজনের ক্ষয়ক্ষতির দর্শন হতে। ”

 

সাইয়্যেদুল ইস্তেগফার : ক্ষমা প্রার্থনার দোয়া

عَنْ شَدَّادِ بْنِ أَوْسٍ عَنِ النَّبِيِّ صَلَّى اللهُ عَلَيْهِ وَسَلَّمَ قَالَ سَيِّدُ الاِسْتِغْفَارِ أَنْ يَّقُوْلَ الْعَبْدُ : اَللَّهُمَّ أَنْتَ رَبِّيْ لَا إِلَهَ إلَّا أَنْتَ خَلَقْتَنِيْ وَأَنَا عَبْدُكَ وَأَنَا عَلَى عَهْدِكَ وَوَعْدِكَ مَا اسْتَطَعْتُ أَعُوْذُ بِكَ مِنْ شَرِّ صَنَعْتُ أَبُوْءُ لَكَ بِنِعْمَتِكَ وَأَبُوْءُ لَكَ بِذَنْبِيْ فَاغْفِرْلِيْ فإِنَّهُ لَا يَغْفِرُ الذُّنُوبَ إِلَّا أَنْتَ . قَال: وَمَنْ قَالَهَا مِنَ النَّهَارش مُوْقِنًا بِهَا, فَمَاتَ مِنْ يَوْمِهِ قَبْلَ أَنْ يُّمْسِيَ , فَهُوَ مِنْ أَهْلِ الْجَنَّةِ, وَمَنْ قَالَهَا مِنَ اللَّيْلِ وَهُوَ مُوْقِنٌ بِهَا, فَمَاتَ قَبْلَ أَنْ يُّصْبِحَ, فَهُوَ مِنْ أَهْلِ الْجَنَّةِ (رواه البخاري)

“হে আল্লাহ! তুমিই আমার রব, তুমি ভিন্ন আর কোন ইলাহ নেই। তুমিই আমাকে সৃষ্টি করেছ এবং আমি তোমার গোলাম। আমি যথাসাধ্য তোমার দেয়া ওয়াদা-প্রতিশ্রুতি পালনে দৃঢ় থাকব। আমি আমার কৃতকর্মের মন্দ পরিণাম হতে তোমার নিকট আশ্রয় চাই। আমার প্রতি তোমার নিয়ামতসমূহকে ¯^xKvi করি। আমি আরও ¯^xKvi করি আমার গুনাহসমূহের কথা। কাজেই তুমি আমার গুনাহগুলিকে মাফ কর। কেননা তুমি ছাড়া গুনাহ মাফ করার কেউ নেই।”

নবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বলেন: তোমাদের কেউ এ কথাগুলো সন্ধ্যাবেলায় বললে, অতঃপর ভোর হবার আগে তার মৃত্যু হলে তার জন্য জান্নাত অবধারিত হয়ে যায়। অনুরূপভাবে তোমাদের কেউ তা ভোর বেলায় বললে, অতঃপর সন্ধ্যার আগেই তার মৃত্যু হলে তার জন্য ও বেহেশত অবধারিত হয়ে যায়।” (সহীহ বুখারী, তিরমিযী ও নাসাঈ)

 

কুনুতে নাযেলা

বিপদ থেকে উদ্ধার এবং শক্রদের ধ্বংসকারীতা থেকে রক্ষা ও বাতিল শক্তিকে ধ্বংস করার জন্য রাসূল (সঃ) এবং সাহাবাগণ এই দোয়া পড়তেন। বর্তমানে বাতিল শক্তি দেশীয় ষড়যন্ত্র্ত্র এবং আন্তর্জাতিক ষড়যন্ত্রের বেড়াকলে ইসলামকে ধ্বংস এবং ইসলামের নূর নিভিয়ে দেয়ার জন্যে অমানুষিক যুলুম নির্যাতন করছে। নৈরাশ্যজনক এই অবস্থা থেকে বাচার জন্যে আমরা নিজেরা কুনুতে নাযেলা পড়ব এবং পরিবারের সবাইকে পড়তে উদ্বুদ্ধ করব ইনশাল্লাহ।

 

কুনুতে নাযেলা বলতে সেই দোয়া বুঝায় যা নবী পাক (সাঃ) দুশমনদের ধ্বংসকারীতা থেকে রক্ষার জন্যে তাদের শক্তি চূর্ণ করে তাদেরকে ধ্বংস করার জন্যেপড়েন।১ তাঁর পরে সাহাবায়ে কেরাম (রা) তা পড়ার ব্যবস্থা করেছেন।২

 

আহলে ইসলাম যদি কোন সময়ে কঠিন অবস্থার সম্মুখীন হয়, দিন-রাতব্যাপী দুশমনের পক্ষ থেকে আসন্ন বিপদে এবং তাদের ভয় ও সন্ত্রাসে তাদের জীবন অতিষ্ঠ হয়ে পড়ে, যদি চারদিকে দুশমনের শক্তিমত্তা দেখা যায় তারা যদি মিল্লাতে ইসলামিয়াকে ধ্বংস করার জন্যে এবং ইসলামের নূর নিভিয়ে দেয়ার জন্যে আহলে ইসলামের উপর অমানুষিক যুলুম করতে থাকে, এমন নৈরাশ্যজনক অবস্থা থেকে বাঁচার জন্যে দুশমনের শক্তি চূর্ণ করতে, তাদেরকে ধ্বংস করতে আল্লাহর কাছে দরখাস্ত করার জন্যে কুনুতে নাযেলা পড়া মাসনূন।

 

কুনুতে নাযেলার মাসয়ালা

১. উচ্চশব্দে পড়া সকল নামাযে কুনুতে নাযেলা পড়া জায়েয।৩ বিশেষ করে ফজরের নামাযে পড়ার ব্যবস্থা করা উচিত।

২. যদি মুক্তাদীদের দোয়া কুনুতে নাযেলা মনে থাকে, তাহলে ইমামও আস্তে আস্তে পড়বে এবং সকল মুক্তাদীও আস্তে আস্তে পড়বে। কিন্তু আজকাল যেহেতু সাধারণত মুক্তাদীদের দোয়া মনে থাকে না সে জন্যে উত্তম এই যে, ইমাম উচ্চশব্দে* থেমে থেমে পড়বে এবং মুক্তাদীগণ আমীন, আমীন বলতে থাকবে।

৩. শেষ রাকয়াতে রুকু থেকে উঠার পর ইমাম এবং মুক্তাদী সকলে হাত বাঁধবে** ইমাম কুনুত পড়বে এবং মুক্তাদী আস্তে আস্তে আমীন বলবে। ইমাম আবু হানীফা এবং ইমাম আবু ইউসুফের নিকট হাত বেঁধে কুনুতে নাযেলা পড়া মাসনূন।

৪. একাকী নামায পাঠকারীও কুনুত পড়তে পারে। নারীগণও তাদের নামাযে পড়তে পারে।

 

১. হযরত আবু হুরায়রাহ (রা) বলেন, নবী (সঃ) মুসলমান কয়েদীদের উদ্ধার এবং কাফেরদের ধ্বংসের জন্যে অনবরত একমাস পর্যন্ত এশার নামাযে এ কুনুত পড়তেন। আবু হুরায়রাহ (রা) বলেন, একদিন নবী (সঃ) এ দোয়া পড়লেন না। তখন আমি নবী (সঃ) কে না পড়ার কারণ জিজ্ঞাসা করলাম। তখন তিনি বললেন, তুমি কি দেখছ না যে, মুসলমান কয়েদীরা খালাস হয়ে  এসেছে?    (আবু দাউদ)

২. হযরত আব বকর (রা) সম্পর্কে বর্ণিত আছে যে, তিনি মুসায়লামা কায্‌যাবের বিরুদ্ধে যুদ্ধের সময় এ কুনুতে নাযেলা পড়েন। এমনি হযরত ওমর (রা), হযরত আলী (রা) এবং আমীর মুয়াবিয়া (রা) যুদ্ধের সময় কুনুতে নাযেলা পড়েন (গনিয়াতুল মস্তামলী)।

৩. আল্লামা তাহাবী শুধু ফজর নামাযে কুনুতে নাযেলা পড়ার উল্লেখ করেছেন। শামী কেতাবের লেখক এ উক্তিকেই প্রাধান্য দিয়েছেন।

 

আয়নী, শরহে হেদায়া উচ্চশব্দে পড়া সকল নামাযে পড়ার বিশ্লেষণ করেছেন। আয়নী শরহে হেদায়ার শব্দগুলো হচ্ছে

 

 

কুনুতে নাজেলার দোয়া :

اَللَّهُمَّ اهْدِنَا فٍيْمَنْ هَدَيْتَ وَعَافِنَا فِيْمَنْ عَافَيْتَ وَتَوَلَّنَا فِيْمَنْ تَوَلَّيْتَ وَبَارِكْ لَنَا فِيْمَا أَعْطَيْتَ وَقِنَا شَرَّ مَا قَضَيْتَ – إِنَّكَ تَقْضِيْ وَلاَ يُقَضَى عَلَيْكَ إِنَّهُ لاَ يََذِلُّ مَنْ وَالَيْتَ وَلاَ يَعِزُّ مَنْ عَادَيْتَ تَبَارَكْتَ رَبَّنَا وَتَعَالَيْتَ نَسْتَغْفِرُكَ وَنَتُوْبُ إِلَيْكَ وَ صَلَّى اللهُ عَلَى النَّبِيِّ الْكَرِيْمِ.

اَللَّهُمَّ اغْفِرْ لَنَا وَلِلْمُؤْمِنِيْنَ  وَالْمُؤْمِنَاتِ وَالْمُسْلِمِيْنَ وَالْمُسْلِمَاتِ وَأَلِّفْ بَيْنَ قُلُوْبِهِمْ وَأَصْلِحْ ذَاتَ بَيْنِهِمْ وَانْصُرْنَا عَلَى عَدُوِّكَ وَعَدُوِّهِمْ- اَللَّهُمَّ الْعَنِ الْكَفَرَةَ الَّذِيْنَ يَصُدُّوْنَ عَنْ سَبِيْلِكَ وَيُكَذِّبُوْنَ رُسُلَكَ وَيُقَاتِلُوْنَ أَوْلِيَائَكَ , اَللَّهُمَّ خَالِفْ بَيْنَ كَلِمَتِهِمْ وَزَلْزِلْ أَقْدَامَهُمْ وَأَنْزِلْ بِهِمْ بَأْسَكَ الَّذِيْ لاَ تَرُدُّهُ عَنِ الْقَوْمِ الْمُجْرِمِيْنَ.

 

(আল্লাহুম্মা ইহ্‌দিনা ফী মান হাদাইতা ওয়া আ’ফিনা ফী মান্‌ আ’ফাইতা ওয়া তাওয়াল্লানা ফীমান্‌ তাওয়াল্লাইতা ওয়া বারিক লানা ফীমা আ’তাইতা ওয়াক্বিনা শার্‌রা মা ক্বদাইতা, ইন্নাকা তাক্বদি ওয়ালা য়ুক্বদা আলাইকা ইন্নাহু লা ইয়াযিল্লু মাও্‌ওয়ালাইতা ওয়ালা ইয়ায়িয্‌যু মান আ’দাইতা তাবারাক্‌তা রব্বানা ওয়া তাআ’লাইতা নাসতাগফিরুকা ওয়া নাতুবু ইলাইকা ওয়াসল্লাল্লাহু আলান্নাবিয়্যিল কারিম।

আল্লাহুম্মাগ্‌ ফিরলানা ওয়ালিলমু’মুনিনা ওয়াল মু’মিনাতি ওয়ালসুনলিমিনা ওয়াল মুসলিমাতি ওয়া আল্লিফ বাইনা কুলুবিহিম ওয়া আসলিহ্‌ যাতা বাইনিহিম ওয়ান্‌সুরনা আ’লা আ’দুয়্যিকা ওয়া আ’দুয়্যিহিম।

আল্লাহুম্মাল আ’নিল কাফারাতাল্লাযিনা ইয়াসুদ্দুনা আন্‌ সাবিলিকা ওয়া ইকায্‌যিবুনা রুসুুলাকা ওয়া ইক্বাতিলুনা আওলিয়াকা আল্লাহুম্মা খালিফ্‌ বাইনা কালিমাতিহিম ওয়া যাল্‌যিল্‌ আক্বদামাহুম ওয়া আন্‌যিল বিহিম বাসাকাল্লাযি লা তারুদ্দুহু আনিল ক্বাওমিল মুজ্‌রিমিন।)

 

“হে আল্লাহ্‌ তুমি আমাদেরকে হেদায়েত দান করে তাদের মধ্যে শামিল কর যাদেরকে তুমি হেদায়েত দান করেছ। তুমি আমাদের সচ্ছলতা দান করে তাদের মধ্যে শামিল কর যাদেরকে তুমি সচ্ছলতা দান করেছ। আমাদের অভিভাবকত্ব করে তাদের মধ্যে শামিল কর যাদের তুমি অভিভাবক হয়েছ। আমাদেরকে তুমি সেই অনিষ্ট থেকে রক্ষা কর যার ফায়সালা তুমি করেছ-কারণ ফায়সালা তুমিই করে থাক এবং তোমার উপর কারো ফায়সালা কার্যকর হয় না। তুমি যাকে দুশমন বলে আখ্যায়িত কর সে কখনো সম্মান পেতে পারে না। তুমি বড়ো বরকতওয়ালা। হে আমাদের রব, সুউচ্চ ও সুমহান, আমরা তোমার কাছে মাগফেরাত চাচ্ছি তোমার কাছে তওবা করছি। আল্লাহ্‌র রহমত হোক নবী (সঃ) উপর।

“হে আল্লাহ্‌ আমাদেরকে মাফ কর। মুমিন নারী-পুরুষ এবং মুসলিম নারী-পুরুষকে মাফ কর, তাদের অন্তরকে পরস্পর মিলিত করে দাও, তাদের পারস্পরিক সম্পর্ক সুদৃঢ় করে দাও, তোমার এবং তাদের দুশমনের মুকাবিলায় আমাদের মদদ কর। আয়  আল্লাহ! তুমি ঐ সব কাফেরদের উপর লানত কর যারা মানুষকে তোমার পথ থেকে বিভ্রান্ত করে সরিয়ে দেয়, যারা তোমার রসূলগণকে মিথ্যা মনে করে, যারা তোমার প্রিয় লোকদের বিরুদ্ধে লড়াই করে। আয় আল্লাহ্‌ তুমি তাদের মধ্যে পারস্পরিক মতানৈক্য সৃষ্টি করে দাও, তাদেরকে ভীত প্রকম্পিত করে দাও এবং তাদের উপর তোমার এমন আযাব নাযিল কর যা তুমি তোমার পাপীদের জন্যে রহিত কর না।”  (বুখারী)